রংপুর সংবাদ লালমনিরহাটে পৌষ মেলার নামে চলছে প্রকাশ্যে জুয়া ও অশ্লীল নৃত্য - রংপুর সংবাদ

লালমনিরহাটে পৌষ মেলার নামে চলছে প্রকাশ্যে জুয়া ও অশ্লীল নৃত্য


রংপুর সংবাদ ফেব্রুয়ারী ১২, ২০২৩, ৭:৩৯ PM
লালমনিরহাটে পৌষ মেলার নামে চলছে প্রকাশ্যে জুয়া ও অশ্লীল নৃত্য

 

রবিউল ইসলাম বাবুল,লালমনিরহাট:
লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলায় পৌষ মেলার নামে চলছে অশ্লীল নৃত্য ও জুয়া দেখার কেউ নেই এ যেন মগেরমুলুক।

শনিবার (১১ফ্রেরুয়ারী) কালীগঞ্জ উপজেলর পৌষ মেলা ঘুরে দেখা গেলো এই দৃশ্য। কালীগঞ্জে কথিত সার্কাসের নামে দর্শকের উপস্থিতি বাড়াতে সার্কাসে বাড়তি বিনোদন বাড়াতে এ অভিনব কৌশল বেঁচে নিয়েছেন।

এ দিকে অশ্লীল নৃত্য পরিবেশনের জন্য অবিভাবক মহল ও গন্যমান্য ব্যক্তিদের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। মেলায় বসানো হচ্ছে নিষিধ্য জুয়ার আসর। সেখানে প্রতিরাতে প্রায় অর্ধকোটি লেনদেন হচ্ছে। এতে কোন পরিবার সরর্স্ব হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে যাচ্ছে। এতে করে এলাকায় বেরেছে চুরি, ছিন্তাই এর মতো ঘটনা। উটতি বযসের যুবক থেকে শুরু করে বৃদ্ধরাও ছুটে চলছে এই মরন নেশা জুয়ার টানে।

এদিকে ১৭ শর্তে ‘পৌষ মেলার’ নামে প্রসাশনের নিকট অনুমতি পাওয়া পৌষ মেলায় প্রায় অর্ধেক শর্ত ভঙ্গ করেছে আয়োজক কমিটি। অতিরিক্ত সাউন্ড, জুয়া ও অশ্লীলতাসহ অসামাজিক নানা কর্মকান্ডে অতিষ্ট হয়ে উঠেছেন স্থানীয় সাধারণ মানুষ। কিন্তু আয়োজক কমিটির ভয়ে প্রকাশ্যে মুখ খুলছেনা কেউ।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, মেলার নামে মূলত অশ্লীল নৃত্য, মদ ও জুয়ার আসর বসানো হয়েছে। এই জুয়ায় প্রতিরাতে লেনদেন হচ্ছে প্রায় ৫০ লাখ টাকা। আর এসব করা হচ্ছে টাকার বিনিময়ে অনেকের মুখ বন্ধ করে।

জানা গেছে, লালমনিরহাটের কালীগঞ্জের তালুক বাণীনগরে দলগ্রাম-শান্তিগঞ্জ সড়কের পাশে চলছে এ মেলা। তালুক বাণীনগর ইজিবাইক সমবায় সমিতি নামের একটি সংগঠনের পক্ষ থেকে মাসব্যাপি পৌষ মেলা আয়োজনের জন্য জেলা প্রশাসনের কাছ থেকে অনুমতি নেয়া হয়েছে। গত ২ ফেব্রæয়ারি শুরু হওয়া এই মেলায় ছোটখাট কয়েকটি খাবার ও দুটি কসমেটিস্ দোকান ছাড়া তেমন কিছু নেই। তবে চলছে ‘দি নিউ লাকি সেভেন সার্কাস’।

জেলা প্রশাসন সূত্র জানায়, ২ ফেব্রæয়ারি থেকে ৩ মার্চ পর্যন্ত মাসব্যাপি পৌষ মেলায় সার্কাস, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, নাগরদোলা, জাদুখেলা, মোটরসাইকেল ও বাইসাইকেল খেলা প্রদর্শনীর জন্য অনুমতি প্রদান করা হয়েছে। অনুমতির শর্তে বলা হয়েছে, সার্কাসে সুস্থ বিনোদনসহ প্রতিদিনের কার্যক্রম রাত নয়টার মধ্যে শেষ করতে হবে। অশ্লীল নৃত্য ও জুয়া আয়োজন করা যাবে না। উচ্চ আওয়াজে মাইক বা শব্দযন্ত্র ব্যবহার বন্ধ রাখতে হবে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা, মাদক কেনাবেচা বা ব্যবহার নিষিদ্ধসহ বিভিন্ন বিধিনিষেধের বিষয়ে উল্লেখ করা হয়েছে অনুমতির শর্তগুলোতে। কাকিনা বাণীনগরে ধান চাষ হয় এমন জমিতে এবার চারা রোপন বন্ধ রেখে জমির মালিকদের সাথে চুক্তির ভিত্তিতে কথিত এ মেলার আয়োজন করা হয়েছে। এ মেলায় ছোট-বড় মিলিয়ে দোকান রয়েছে মাত্র ১০টি।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, দি নিউ লাকি সেভেন সার্কাস পেশাদার কোনো সার্কাস দল নয়। কথিত এই সার্কাসের প্রতিটি শোতে এক ঘন্টারও কম সময় দেখানো হয় খেলাধুলা। বাকি সময় চলে নাচ-গান। অনুমতির শর্তানুযায়ী রাত নয়টার কার্যক্রম শেষ করার কথা বলা হলেও রাতের শো শুরু হয় দশটার দিকে। রাতে ক‚রুচিপূর্ণ নাচ দেখতে দর্শকে ভরা পুরো প্যান্ডেল। প্যান্ডেলের পেছনে দুই পাশে বসানো হয় দুটো ‘ডাবুর বোর্ড’। রাত প্রায় দেড়টা পর্যন্ত এই জুয়া ও নৃত্য চলে ।

মেলা কমিটির একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, প্রতি রাতে দুই লাখ টাকার বিনিময়ে জুয়ারিদের একটি দলকে স্থানীয়ভাবে পরিচিত ডাবু নামের জুয়া পরিচালনার জন্য অনুমতি দেওয়া হয়। আর নির্বিঘ্নে জুয়া পরিচালনার জন্য আয়োজক কমিটি পুলিশ, প্রশাসন, কতিপয় সাংবাদিক, বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের কতিপয় নেতকর্মীকে ‘মাসোহারা’ দিয়ে থাকে। সূত্র মতে, দুটি জুয়ার বোর্ডে প্রতিরাতে প্রায় অর্ধকোটি টাকা লেনদেন হচ্ছে।

তালুক বাণীনগর ইজি বাইক সমবায় সমিতি ও আয়োজক কমিটির সভাপতি সহিদার রহমান বলেন, ‘আমরা সার্কাসের অনুমতি নিয়েছি। কিন্তু প্যান্ডেলের পাশে জুয়া বসলে আমার করার কী আছে? আর এখানে কোনো অশ্লীল নৃত্য হচ্ছে না বলে জানান তিনি।