1. rkarimlalmonirhat@gmail.com : Rezaul Karim Manik : Rezaul Karim Manik
  2. kibriyalalmonirhat84@gmail.com : Golam Kibriya : Golam Kibriya
  3. mukulrangpur16@gmail.com : Saiful Islam Mukul : Saiful Islam Mukul
  4. maniklalrangpur@gmail.com : রংপুর সংবাদ : রংপুর সংবাদ
নীলফামারীতে পুলিশের হেল্পডেক্স'র তাৎক্ষণিক সেবায় মায়ের কোলে ফিরছে শিশু | রংপুর সংবাদ
সোমবার, ১৪ জুন ২০২১, ০৯:৩৪ পূর্বাহ্ন

নীলফামারীতে পুলিশের হেল্পডেক্স’র তাৎক্ষণিক সেবায় মায়ের কোলে ফিরছে শিশু

ইব্রাহিম সুজন,নীলফামারী
  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ৬ মে, ২০২১
  • ৭১

শিউলি আক্তার ও সিরাজুল ইসলাম দম্পত্তি। নীলফামারী সদর উপজেলার চাপড়া সরমজানী ইউনিয়নের নতিব চাপড়া এলাকার বাসিন্দা তারা। তাদের কোলজুড়ে রয়েছে ৪০দিনের ফুটফুটে শিশু। বেশ কিছুদিন থেকে পারিবারিক কোলহ চলছিলো তাদের।

এরই জের ধরে স্বামী সিরাজুল স্ত্রী শিউলিকে মারধোর করে ৪০দিনের শিশু ফাতেমা বেগমকে তার কাছে রেখে স্ত্রীকে বাড়ি থেকে বের করে দেয়। উপায় না পেয়ে বিষয়টি মা শিউলি নীলফামারী থানা পুলিশকে জানালে তাৎক্ষনিক ভাবে পুলিশ তার পাশে এগিয়ে আসে।

অভিযোগের প্রেক্ষিতে মাত্র দুই ঘন্টার মধ্যে মায়ের কাছ থেকে আলাদা করে রাখা দুধ শিশু ফাতেমাকে উদ্ধার করে মায়ের কাছে ফিরিয়ে দেয় নীলফামারী থানার নারী, শিশু, বয়স্ক ও প্রতিবন্ধী ডেক্স। পাশাপাশি তাদের পারিবারিক বিরোধ নিষ্পত্তি করে দেয়া হয় এই ডেক্সের মাধ্যমে। আরেকজন সদর উপজেলার চওড়া বড়গাছা ইউনিয়নের উত্তর চওড়া গ্রামের আয়েশা আক্তার। স্বামী নুর আমিনের সাথে বিরোধের জেরে তাদের দুই মাসের দুধ শিশু নুরী বেগমকে আটকিয়ে রাখে স্বামী ও শ্বশুড় বাড়ির লোকজন।

এমতাবস্থায় পুলিশের কাছে আয়েশা বিষয়টি জানালে চার ঘন্টার মধ্যে তার শ্বশুড় বাড়ি টুপামারী ইউনিয়নের নতুন পুলিশ লাইন এলাকা থেকে শিশুটি উদ্ধার করে মায়ের কোলে ফিরিয়ে দেয়া হয়। শুধু শিউলি কিংবা আয়েশা নন পারিবারিক বিরোধে দিক বিদিক হারানো নারীদের জন্য পুলিশের নারী, শিশু, বয়স্ক ও প্রতিবন্ধী ডেক্স পাশে দাড়িঁয়েছে। যার সুফল পাচ্ছেন নারী শিশু থেকে শুরু করে বয়স্ক ও প্রতিবন্ধী মানুষরা।

নীলফামারী থানা সুত্র জানায়, গেল তিন মাসে এই ডেক্সের আওতায় মায়ের কাছ থেকে আলাদা করে রাখা ১৩টি শিশু উদ্ধার করে মায়ের কোলে ফিরিয়ে দেয়া হয়। পাশাপাশি স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে বিরোধ নিষ্পত্তি করে দিয়ে স্বাভাবিক সংসারে ফেরার ব্যবস্থা করে দেয়া হয় তাদের মধ্যে।

নারী, শিশু, বয়স্ক ও প্রতিবন্ধী ডেক্স এর দায়িত্ব প্রাপ্ত কর্মকর্তা নীলফামারী থানার উপ-পরিদর্শক(এসআই) মনিরা বেগম জানান, আমাদের এই ডেক্স থেকে চার ক্যাটাগরির মানুষকে তাৎক্ষনিক সেবা হচ্ছে। সরাসরি কিংবা জাতীয় সেবা নম্বর ৯৯৯ থেকে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে ওসি স্যারের নির্দেশে ঘটনাস্থলে তাৎক্ষনিক পুলিশ পৌঁছে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়ে থাকে।

এ সময় আটকিয়ে রাখা শিশুকে উদ্ধার, নির্যাতনের শিকার নারীকে বিশেষ সেবা, প্রতিবন্ধী এবং বয়স্ক মানুষদেরও একই সেবা দেয়া হয়।

নীলফামারী থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) আব্দুর রউপ বলেন, আমরা দেখছি পারিবারিক বিরোধের কারণে স্ত্রীকে মারধোর করে বাড়ি থেকে বের করে দেয়া হচ্ছে। এটিতে শেষ নয় দুধ শিশুকে মায়ের কাছ থেকে আলাদা করে নিয়ে স্বামী ও শ্বশুড় বাড়ির লোকজন আটকিয়ে রাখছে। এসব বিষয় কানে আসা মাত্র আমরা তাৎক্ষনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করছি।

তিনি বলেন, চার স্তরের সেবা দিতে এই ডেক্স চালু করা হয়েছে। পুলিশ সুপার স্যারের সার্বিক তদারকিতে জেলার ছয় থানায় অনুরুপ সেবা কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে।

জেলা পুলিশের মুখপাত্র আবুল বাশার মোহাম্মদ আতিকুর রহমান জানান, কিছুদিন আগে প্রতিবন্ধী এক দম্পত্তির মধ্যে বিরোধ চলছিলো। এক পর্যায়ে প্রতিবন্ধী নারীকে মারধোর করে খালি হাতে বাড়ি থেকে বের করে দেয়া হলো। বিষয়টি জানতে পেরে প্রতিবন্ধী নারীর পাশে দাঁড়ায় পুলিশ এবং সংসার না হওয়ায় স্বামীর বাড়িতে রাখা নারীর প্রয়োজনীয় সামগ্রী উদ্ধার করে দেয়া হয়।

তিনি জানান, এই ডেক্সের আওতায় গোটা জেলায় ৩০৬জনকে তাৎক্ষনিক সেবা দেয়া হয়েছে। এরমধ্যে জলঢাকায় ৩২, নীলফামারীতে ৫১,ডোমারে ৭৩, সৈয়দপুরে ৪৩, কিশোরগঞ্জে ৩৯ এবং ডিমলায় ৬৮জন রয়েছেন।

নীলফামারী জেলা মহিলা পরিষদের সভাপতি দৌলত জাহান ছবি বলেন, নারীরা সবসময় নিজেদেরকে অসহায় মনে করে। কি বাবার বাড়ি, কি স্বামীর বাড়ি। নিজের বাড়ি বলতে কিছু নেই তাদের।

পুলিশের এই সেবা প্রশংসিত উল্লেখ করে তিনি বলেন, এরফলে সমাজে পজিটিভ রোল পড়বে। কারণ নির্যাতকারীরা সেবার এই চিত্র দেখে পিছু হটবেন, ভীত হবেন।

এ বিষয়ে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোখলেছুর রহমান বিপিএম, পিপিএম বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নারী নির্যাতন, সহিংসতা এবং সকল ধরণের বৈষম্য নিরসনে বিশেষ পদক্ষেপ নিয়েছেন। তারই আলোকে বাংলাদেশ পুলিশ বিশেষ এই ডেক্স চালু করেছে।

নীলফামারীতে এই ডেক্স পরিচালনা করা হয় একজন নারী উপ-পরিদর্শকের নেতৃত্বে।

তিনি বলেন, এই ডেক্সের আওতায় নারী, শিশু, বয়স্ক ও প্রতিবন্ধী মানুষদের প্রয়োজন মাফিক সেবা দেয়া হচ্ছে। ডেক্সের ফলে বিশেষ উপকৃত হচ্ছেন মানুষ।

আপনার সোস্যাল মিডিয়ায় শেয়ার দিন

এই ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ

© ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | রংপুর সংবাদ.কম
Theme Customization By NewsSun