রংপুর সংবাদ » হরিপুরে অনির্দিষ্টকালের জন্য ১৪৪ ধারা জারি

হরিপুরে অনির্দিষ্টকালের জন্য ১৪৪ ধারা জারি


রংপুর সংবাদ নভেম্বর ৭, ২০১৯, ২:৫৫ অপরাহ্ন
হরিপুরে অনির্দিষ্টকালের জন্য ১৪৪ ধারা জারি

আ. লীগের দুই গ্রুপের দ্বন্দ্বের জেরে ঠাকুরগাঁও হরিপুর উপজেলায় রাজনৈতিক দলের সকল সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ করে অনির্দিষ্টকালের জন্য ১৪৪ ধারা জারি করেছে প্রশাসন। বুধবার (৬ নভেম্বর) সন্ধ্যার পর থেকে এ আদেশ জারি করা হয়। যদিও এর আগে একইদিন বেলা ১১টায় শুধুমাত্র হরিপুরের চাপধা বাজার এলাকা ও তার আশপাশে ১৪৪ জারি করে প্রশাসন।

পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, দীর্ঘদিন ধরে জেলার হরিপুর উপজেলায় আ. লীগের কমিটিতে সদস্য বাতিল ও অন্তর্ভুক্তিকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের মধ্যে দ্বন্দ্ব লেগেই আছে। বুধবার হরিপুর উপজেলার বকুয়া ইউনিয়নে আ. লীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও গুটি কয়েক নেতাকর্মীকে সভায় ডাকাকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের লোকজন উপজেলার বিভিন্ন স্থানে লাঠিসোটা নিয়ে মারমুখী অবস্থান নেয়।

টের পেয়ে প্রশাসনের পক্ষ থেকে গত ৬ থেকে আগামী ৯ নভেম্বর পর্যন্ত শুধুমাত্র বকুয়া ইউনিয়নের চাপধা বাজার এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি করা হয়। কিন্তু তার পরেও দুই গ্রুপের নেতাকর্মীরা উপজেলায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে নিজেদের মধ্যে সংঘর্ষের রূপ নেয় বলে আশঙ্কা করা হয়। পরবর্তীতে প্রশাসন সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে বুধবার সন্ধ্যা থেকে হরিপুর উপজেলায় ১৪৪ ধারা জারি করে।

তবে ১৪৪ ধারা শুধু রাজনৈতিক দলগুলো সভা সমাবেশের ওপর, অন্যান্য সব কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে বলে প্রশাসনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে।

হরিপুর উপজেলার নির্বাহী অফিসার আব্দুল করিম জানান, রাজনৈতিক সকল ধরনের সভা সমাবেশ নিষিদ্ধের ওপড় উপজেলায় অনির্দিষ্টকালের জন্য ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। এছাড়া সকল ক্ষেত্রে চলাচল স্বাভাবিক থাকবে।

হরিপুর থানার ওসি আমিরুজ্জামান বলেন, পুলিশ তৎপর রয়েছে। যে কোনো পরিস্থিতি সামাল দিতে আমরা প্রস্তুত রয়েছি।

উল্লেখ্য, হরিপুর উপজেলা আ. লীগের কমিটিতে অনুমোদন ছাড়াই নতুন করে সদস্য অন্তর্ভুক্ত করার পর থেকেই রাজনৈতিক অস্থিরতা শুরু হয়। উপজেলা আ. লীগের একাধিক নেতা জানান, আ. লীগের কিছু সুবিধাবাদী নেতার কারণে এ ধরনের পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। ত্যাগী নেতারা বাদ দিয়ে একটি পক্ষ গায়ের জোরে দলীয় সকল প্রকার কার্যক্রম চালিয়ে যেতে চায়। যারা দীর্ঘদিন ধরে আ. লীগের হাল ধরে আছে তাদের বাদ দিয়ে কার্যক্রম পরিচালনার জন্য এমন পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে বলে জানান তারা।