1. rkarimlalmonirhat@gmail.com : Rezaul Karim Manik : Rezaul Karim Manik
  2. kibriyalalmonirhat84@gmail.com : Golam Kibriya : Golam Kibriya
  3. mukulrangpur16@gmail.com : Saiful Islam Mukul : Saiful Islam Mukul
  4. maniklalrangpur@gmail.com : রংপুর সংবাদ : রংপুর সংবাদ
ভারতীয়রা এপারে চাষাবাদ করতে আসতেন চুক্তিতে | রংপুর সংবাদ
সোমবার, ১৪ জুন ২০২১, ১২:৪৫ পূর্বাহ্ন

ভারতীয়রা এপারে চাষাবাদ করতে আসতেন চুক্তিতে

লালমনিরহাট প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় : শুক্রবার, ১১ জুন, ২০২১
  • ১৩

পশ্চিমে তিস্তা আর পূর্বে ভারতীয় সীমান্ত নিয়ে লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলা। ভারতীয় কাঁটাতার ঘেঁষা এই উপজেলা। ভারত সরকার সীমান্তে তিন শত গজ জমি ছেড়ে দিয়ে কাঁটাতারের বেড়া দিয়ে পুরো দেশ ঘিরে নিয়েছে। আর তাই এপারে রয়েছে ভারতীয় জমি। আর সেই জমিতে নানা ধরনের ফসল চাষ করেন ভারতীয় নাগরিকরা। যে সব ভারতীয় নাগরিকের জমি কাঁটাতারের বেড়ার এপারে রয়েছে তারা ৪ ঘণ্টার চুক্তিতে কাঁটাতারের বেড়া পেরিয়ে এপারে আসতে পারেন।

তবে সে জন্য তাদেরকে ভারতীয় নাগরিক কার্ড ও রেশন কার্ড জমা দিতে হবে ভারতীয় সীমান্ত রক্ষী বাহিনী বিএসএফকে। প্রতিদিন ভারতীয় সময় সকাল সাড়ে ৮টার (বাংলাদেশ সময়  সকাল ৯টা) সময় গেট খুলে দেয় বিএসএফ। যার যার এপারে আসা প্রয়োজন তারা নাগরিক কার্ড ও রেশন কার্ড জমা দিয়ে এপারে আসেন। এরপর আবার গেট বন্ধ করে দেওয়া হয়।

আবার ভারতীয় সময় দুপুর সাড়ে ১২টার (বাংলাদেশ সময় দুপুর ১টা) দিকে গেট খুলে দেয় বিএসএফ। যারা যারা সকালে গেট দিয়ে কাঁটাতার পেরিয়ে এসেছেন তাদের সবাইকে এখন ফিরতে হবে নতুবা আর ভারতে ফিরতে পারবেন না তারা। আর যারা ভারতীয় সময় দুপুর সাড়ে ১২টার (বাংলাদেশ সময় দুপুর ১টা) দিকে গেট দিয়ে কাঁটাতারের বেড়া পেরিয়ে এপাড়ে আসবেন তাদেরকেও একই নিয়মে ভারতীয় সময় বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে নিজ দেশে ফিরতে হবে। কিন্তু ভারতে করোনা পরিস্থিতি খারাপ হওয়ায় গত এক মাস ধরে কাঁটাতারের বেড়া পেড়িয়ে এপাড়ে আসতে দেওয়া হচ্ছে না ভারতীয় নাগরিকদের।

আজ শুক্রবার সকালে হাতীবান্ধা উপজেলার সীমান্ত এলাকা বাড়াই পাড়া ও সিংগীমারী পকেট গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, ভারতীয় সীমান্তে কড়া টহল দিচ্ছেন সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফ। কাঁটাতারের বেড়ার গেট বন্ধ রয়েছে। এ সময় বাংলাদেশি নাগরিক নুরুর সাথে কথা হলে তিনি বলেন, আগে ভারতীয় নাগরিকরা ৪ ঘণ্টার চুক্তিতে নাগরিক কার্ড ও রেশন কার্ড জমা এপারে আসতেন। কিন্তু করোনার কারণে প্রায় এক মাস ধরে কোনো ভারতীয় মানুষ জন এপাড়ে আসে নাই। সারাক্ষণ বিএসএফ পাড়া দিচ্ছেন। একই কথা বলে অরেক স্থানীয় বাসিন্দা অনন্ত রায় বলেন, ভারতীয়রা এপারে চাষাবাদেও পাশাপাশি গরু চড়াতেন। কিন্তু করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ হওয়ায় তারা আর এপারে আসছেন না।

এ বিষয়ে টংভাঙ্গা ইউপি চেয়ারম্যান আতিয়ার রহমান আতি জানান, কাঁটাতারের বেড়ার এপারে রয়েছে ভারতীয় জমি। আর সেই জমিতে নানা ধরনের চাষাবাদ করে ভারতীয় কৃষক। ভারতে করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ হওয়ায় তারা আর এপারে আসছেন না।

আপনার সোস্যাল মিডিয়ায় শেয়ার দিন

এই ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ

© ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | রংপুর সংবাদ.কম
Theme Customization By NewsSun