বিশ্ব চমকে বাংলাদেশ | রংপুর সংবাদ
  1. rkarimlalmonirhat@gmail.com : রংপুর সংবাদ : রংপুর সংবাদ
  2. kibriyalalmonirhat84@gmail.com : Golam Kibriya : Golam Kibriya
  3. maniklalrangpur@gmail.com : রংপুর সংবাদ : Manik Ranpur
  4. mukulrangpur16@gmail.com : Saiful Islam Mukul : Saiful Islam Mukul
বিশ্ব চমকে বাংলাদেশ | রংপুর সংবাদ
শুক্রবার, ২৩ এপ্রিল ২০২১, ১২:০৬ পূর্বাহ্ন



বিশ্ব চমকে বাংলাদেশ

রংপুর সংবাদ
  • প্রকাশকালঃ সোমবার, ১০ ফেব্রুয়ারী, ২০২০
  • ২২

নিউজ ডেস্কঃ টাইগার যুবাদের বিশ্বজয়। স্বপ্নের ফাইনালে গতকাল ভারতকে ৩ উইকেটে হারিয়ে যুব বিশ্বকাপের শিরোপা জিতল বাংলাদেশ। প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপ জিতে নতুন ইতিহাস সৃষ্টি করল যুব টাইগাররা। অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের ফাইনাল ম্যাচটি হলো ঠিক ‘ফাইনালের’ মতোই।

উত্তেজনায় ঠাসা। ম্যাচের শেষটা ছিল চরম নাটকীয়। ১৫ রান বাকি থাকতে বৃষ্টি নামে।

তখন টাইগারদের হাতে ছিল ৩ উইকেট। বল বাকি ছিল ৫৪টি। বৃষ্টি থামলে যখন খেলা শুরু হয় তখন বাংলাদেশের টার্গেট হয় ৩০ বলে ৭ রান। ২৩ বল হাতে রেখেই বৃষ্টি আইনে জিতে যায় বাংলাদেশ।

ক্যাপ্টেনস নক খেললেন অধিনায়ক আকবর। ৪৩ রানের মহামূল্যবান ইনিংস খেলে টাইগারদের জয় নিশ্চিত করেই তিনি মাঠ ছাড়েন।

শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে প্রথমে ব্যাট করে ১৭৭ রান করেছিল ভারতের যুবারা। লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ২৩ বল হাতে রেখে উৎসবে মেতে ওঠে বাংলার দামাল ছেলেরা। ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশের শুরুটা ছিল দুর্দান্ত। ১৭৮ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে উদ্বোধনী জুটিতেই আসে ৫০ রান

তবে এরপর ১৫ রানের মধ্যে তিন উইকেট হারায় টাইগাররা। ওপেনার পারভেজ হোসেন ইমনও ইনজুরিতে পড়ে মাঠের বাইরে চলে যান। লেগ স্পিনার রবি বিষ্ণু ম্যাচের চেহারা বদলে দেন। দলীয় ১০২ রানে ৬ উইকেট পতনের পর শিরোপাকে মনে হচ্ছিল দূরের ‘বাতিঘর’। ঠিক এমন সময় ২৫ রানে ‘রিটায়ার্ড হার্ট’ হওয়া ওপেনার ইমন বাইশগজে ফেরেন। উইকেটে থাকা ক্যাপ্টেন আকবর আলী যেন নতুন করে জীবনী শক্তি পান। টিম টিম করে জ্বলতে থাকা বাতিঘরের আলো অনুসরণ করেন ধীরে ধীরে বাংলাদেশকে নিয়ে যান কাক্সিক্ষত লক্ষ্যের দিকে। জয় থেকে ৩৫ রান দূরে থাকতে ক্যাচ হয়ে যান ইমন। আকবরের সঙ্গে তার ৪৩ রানের জুটি বাংলাদেশকে জয়ের পথে নিয়ে যায়। ইমন করেছেন ৪৭ রান।

গতকাল টাইগারদের জয়ের ভিত করে দেয় বোলাররা। পুরো টুর্নামেন্টে যে ভারতীয় ব্যাটিংআপকে কোনো দল অলআউট করতে পারেনি সেই দলকেই কাল স্বপ্নের ফাইনালে বাংলাদেশের যুবারা প্যাকেট করে ১৭৭ রানে। ভারতের ইনিংসে জয়সয়লের ৮৮ এবং তিলকের ৩৮। আট ব্যাটসম্যান তো দুই অঙ্কের কোটাই স্পর্শ করতে পারেননি। ফিল্ডিংয়ের সময় পুরোটা ছিল শরিফুলময়। এই তরুণ বোলার ১০ ওভারে দুর্দান্ত বোলিং করে মাত্র ৩১ রানে নিয়েছেন ২ উইকেট। দুটি দুর্দন্ত ক্যাচ নিয়েছেন। একটি অবিশ্বাস্য রান আউট করেছেন। এ ছাড়া বাউন্ডারি লাইনে তার ফিল্ডিং ছিল চোখে পড়ার মতো। ভারতের ব্যাটিংয়ের প্রায় পুরো সময়ই নিয়ন্ত্রণ করেছে বাংলাদেশ। একমাত্র জয়সয়লের হাফ সেঞ্চুরি ছাড়া বলার মতো বড় কোনো ইনিংস নেই।

স্বপ্নের ফাইনালে কাল যুবা টাইগারদের নিয়মিত একাদশে একটি পরিবর্তন আনা হয়েছিল। ভারতীয় ব্যাটসম্যানরা স্পিনের বিরুদ্ধে শক্তিশালী বলেই বাংলাদেশ দলে একজন স্পিনার কমিয়ে বাড়ানো হয়েছিল পেসারের সংখ্যা। শরিফুল ও সাকিবের সঙ্গে তৃতীয় পেসার ছিলেন অভিষেক। আর এই অভিষেকই কাল বাজিমাত করে দিয়েছেন। নিয়েছেন ৩ উইকেট। ভারতের ইনিংসে প্রথম আঘাত হেনেছিলেন এই পেসারই। দুর্দান্ত বোলিং করেছেন পেসার সাকিবও। ২৮ রানে নিয়েছেন ২ উইকেট। পাওয়ার প্লের সময় প্রথম দুই ওভারেই মেডেন নিয়েছেন ১৭ বছর বয়সী এই পেসার। বোলিংয়ে পুরো নিয়ন্ত্রণ ছিল তিন পেসারের হাতে। শরিফুল-সাকিব-অভিষেক মিলেই নিয়েছেন ভারতের ৭ উইকেট। যথারীতি বোলিংয়ে সবচেয়ে কিপটে ছিলেন রকিবুল। এই স্পিনার ১০ ওভারে ২৯ রানে নিয়েছেন ১ উইকেট।

ফাইনাল মানেই একটা মনস্তাত্ত্বিক লড়াই! সেখানেও কাল এগিয়ে ছিল টাইগাররাই। আকবরদের বডি ল্যাঙ্গুয়েজই ছিল অন্যরকম। ইনিংসের দ্বিতীয় বলেই পেসার শরিফুল ইসলাম স্লেজিং শুরু করে দেন। সাধারণ বিশ্ব ক্রিকেটে দেখা যায়, ফেবারিট দলের ক্রিকেটাররা প্রতিপক্ষকে মানসিকভাবে ঘায়েল করতে স্লেজিং অস্ত্র ব্যবহার করেন।

দুর্দান্ত শরিফুল আউট করেছেন ভারতের সেরা ব্যাটসম্যান জয়সয়লকে। ড্রেসিংরুমে ফিরিয়ে দিয়েছেন সিদ্ধেস বীরকে। এ ছাড়া তিলক ভার্মা ও সুশান্ত মিশ্রের ক্যাচও নিয়েছেন তিনি। দুটি ক্যাচই ছিল অসাধারণ। পিচের মধ্যে ড্রাইভ দিয়ে রবি বিষ্ণুকে যেভাবে রানআউট করেছেন তা ছিল দেখার মতো।

বোলারদের দেখানো পথে হাঁটেন ব্যাটসম্যানরাও। ৩ উইকেটে জিতে প্রথমবারের মতো বাংলাদেশকে উপহার দেন স্বপ্নের শিরোপা।



সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরো সংবাদ





© ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | রংপুর সংবাদ