1. rkarimlalmonirhat@gmail.com : Rezaul Karim Manik : Rezaul Karim Manik
  2. maniklalrangpur@gmail.com : রংপুর সংবাদ : রংপুর সংবাদ
তিস্তা-ধরলার পানি বিপৎসীমার ওপরে, ভাঙনে গৃহহীন ৫০ পরিবার - রংপুর সংবাদ
বুধবার, ২৪ জুলাই ২০২৪, ০৭:১০ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
মুইও তাড়াতাড়ি তোর কাছোত আসিম’ বলে সাঈদকে চিরবিদায় দিলেন মা বৃহস্পতিবার সারাদেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ ঘোষণা আন্দোলনকারীদের ছয় শিক্ষার্থী হত্যায় বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠন করতে হবে : জিএম কাদের সর্বোচ্চ আদালতের রায়ে হতাশ হতে হবে না:প্রধানমন্ত্রী হাতীবান্ধায় তিস্তার তোড়ে বিলীন কমিউনিটি ক্লিনিক নেতা-কর্মীদের সতর্ক থাকার আহ্বান শেখ হাসিনার, জানালেন কাদের রংপুরে নিহত শিক্ষার্থী আবু সাঈদের জানাজা-দাফন সম্পন্ন ক্যাম্পাস ছাড়ছেন রংপুর বেরোবি শিক্ষার্থীরা, সতর্ক অবস্থানে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী বেরোবি অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা শিক্ষার্থীদের ধাওয়া খেয়ে ক্যাম্পাস ছেড়েছে বেরোবি ছাত্রলীগ

তিস্তা-ধরলার পানি বিপৎসীমার ওপরে, ভাঙনে গৃহহীন ৫০ পরিবার

ডেস্ক রিপোর্ট
  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ২০ জুন, ২০২৪
  • ৪১ জন নিউজটি পড়েছেন

নিউজ ডেস্ক:
উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢল ও কয়েকদিনের ভারী বৃষ্টিপাতের কারণে কুড়িগ্রামের তিস্তা ও ধরলার পানি বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। পানি বেড়ে যাওয়ায় বিভিন্ন এলাকায় দেখা দিয়েছে নদী ভাঙন। গত তিন দিনে নদী ভাঙনে উপজেলার ৫০টি পরিবার গৃহহীন হয়ে পড়েছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের তথ্য অনুযায়ী, আজ বৃহস্পতিবার সকালে ধরলা নদীর পানি তালুক শিমুলবাড়ি পয়েন্টে বিপৎসীমার ২৩ সেন্টিমিটার ও  তিস্তা নদীর পানি কাউনিয়া পয়েন্টে বিপৎসীমার ১৬ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। নদী তীরবর্তী ২০টি চর, দ্বীপচর ও গ্রামের নিচু এলাকা প্লাবিত হয়েছে। ভোর থেকে জেলার সর্বত্র বজ্রসহ ভারী বৃষ্টি হচ্ছে। ফলে বন্যা পরিস্থিতির অবনতির আশঙ্কা করছে পানি উন্নয়ন বোর্ড।

কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার সারডোব এলাকায় ধরলার ভাঙন তীব্র আকার নিয়েছে। এলজিইডির একটি ক্ষতিগ্রস্থ সড়ক ভেঙে পানি ঢুকছে ৪টি গ্রামে। গত তিন দিনে এই এলাকায় ১০টি বাড়ি নদী ভাঙনে বিলীন হয়েছে। ভাঙনের ঝুঁকিতে পড়েছে সদ্য সংস্কার করা বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাধ।

রাজারহাট উপজেলার বিদ্যানন্দ ইউনিয়নের কালিরহাট এলাকায় তিস্তার ভাঙনের ঝুঁকিতে পড়েছে কালিরহাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ বেশ কিছু দোকান ও  বাড়িঘর। সদর উপজেলার প্রথম আলোরচরসহ রৌমারী উপজেলার কয়েকটি চরে নদী ভাঙনে গত দুই দিনে ৪০টি পরিবার গৃহহীন হয়েছে।

 

আপনার সোস্যাল মিডিয়ায় শেয়ার দিন

Leave a Reply

এই ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ

© ২০২৩ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | রংপুর সংবাদ.কম
Theme Customization By NewsSun