1. rkarimlalmonirhat@gmail.com : Rezaul Karim Manik : Rezaul Karim Manik
  2. maniklalrangpur@gmail.com : রংপুর সংবাদ : রংপুর সংবাদ
যুবদল নেতাকে পেটাল ছাত্রদল নেতা - রংপুর সংবাদ
মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪, ০৯:২১ পূর্বাহ্ন

যুবদল নেতাকে পেটাল ছাত্রদল নেতা

ডেস্ক রিপোর্ট
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ২ মে, ২০২৩
  • ৬৭ জন নিউজটি পড়েছেন

নিউজ ডেস্ক:
নেত্রকোণার মদনে  যুবদল নেতাকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে ছাত্রদল নেতা সাইমন আকন্দ লিমনের বিরুদ্ধে।

সোমবার (২ মে) রাতে মদন-ফতেপুর সড়কের গঙ্গানগড় গ্রামের সামনের সড়কে এ ঘটনা ঘটে।

সাইমন আকন্দ লিমন মদন উপজেলার সরকারি হাজী আব্দুল আজিজ খান ডিগ্রি কলেজ শাখার ছাত্রদলের সদস্য সচিব।

ভুক্তভোগী যুবদল নেতার নাম মৌলা মিয়া। তিনি উপজেলার তিয়শ্রী ইউনিয়ন শাখার যুবদলের সাধারণ সম্পাদক। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপতালে পাঠানো হয়েছে।

স্থানীয় লোকজন ও উপজেলা বিএনপি নেতাকর্মীদের সূত্রে জানা গেছে, গত শুক্রবার (২৮ এপ্রিল) উপজেলা যুবদলের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। সেই সম্মেলনে সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী ছিলেন আহ্বায়ক কমিটির সদস্য সচিব মিজানুর রহমান আকন্দ হিমন। ভোটের মাধ্যমে মিজানুর রহমান আকন্দ হিমন পরাজিত হয়। সেই ক্ষোভে মিজানুর রহমান আকন্দ হিমনের চাচাতো ভাই ছাত্রদল নেতা সাইমন আকন্দ লিমন সোমবার রাতে মৌলা মিয়াকে রাস্তায় পেয়ে মারধর করে।

ভুক্তভোগী যুবদল নেতা মৌলা মিয়া বলেন,‘যুবদলের সম্মেলনকে কেন্দ্র করেই পরাজিত প্রার্থী মিজানুর রহমানের ভাতিজা লিমন তার লোকজন নিয়ে আমার ওপর হামলা করেছে। বিএপির এক নেতার ঈঙ্গিতেই এমনটা হয়েছে বলে তিনি দাবি করেন।’

সরকারি হাজী আব্দুল আজিজ খান ডিগ্রি কলেজ শাখার ছাত্রদলের সদস্য সচিব সাইমন আকন্দ লিমন জানান, ‘মোটরসাইকেলযোগে আমি পরশখিলা থেকে মদন আসছিলাম। পথে মৌলা মিয়ার মোটরসাইকেলের সাথে আমার মোটরসাইকেলের ধাক্কা লাগলে তিনি গালমন্দ শুরু করেন। প্রতিবাদ করলে আমার হাতে কামড় দিলে ধাক্কাধাক্কির ঘটনা ঘটে।

এ ব্যাপারে মিজানুর রহমান আকন্দ হিমন জানান,‘ মোটরসাইকেলে ধাক্কা লাগায় হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে শুনেছি। আমার নির্বাচনের কোন ইস্যু সেখানে নেই। তবুও একটি পক্ষ আমার নামে বদনাম রটাচ্ছে।

মদন উপজেলা যুবদলের সভাপতি গোলাম রাসেল রুবেল জানান,‘তিয়শ্রী ইউনিয়নের যুবদলের সাধারণ সম্পাদক মৌলা মিয়াকে মারধর করা হয়েছে আমি শুনেছি। যে ঘটনাটি ঘটেছে তা খুবই ন্যাক্কারজনক, এ নিয়ে আমরা দলীয় ফোরামে আলোচনা করে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নিব।

মদন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ তাওহীদুর রহমান জানান, ‘ বিষয়টি আমার জানা নেই। এ ব্যাপারে লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

আপনার সোস্যাল মিডিয়ায় শেয়ার দিন

Leave a Reply

এই ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ

© ২০২৩ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | রংপুর সংবাদ.কম
Theme Customization By NewsSun