1. rkarimlalmonirhat@gmail.com : Rezaul Karim Manik : Rezaul Karim Manik
  2. maniklalrangpur@gmail.com : রংপুর সংবাদ : রংপুর সংবাদ
রংপুরে ব্রয়লারের কেজি ২৬০, দেশি ৫৫০ টাকা - রংপুর সংবাদ
বুধবার, ২৪ জুলাই ২০২৪, ০৫:৩৮ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
মুইও তাড়াতাড়ি তোর কাছোত আসিম’ বলে সাঈদকে চিরবিদায় দিলেন মা বৃহস্পতিবার সারাদেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ ঘোষণা আন্দোলনকারীদের ছয় শিক্ষার্থী হত্যায় বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠন করতে হবে : জিএম কাদের সর্বোচ্চ আদালতের রায়ে হতাশ হতে হবে না:প্রধানমন্ত্রী হাতীবান্ধায় তিস্তার তোড়ে বিলীন কমিউনিটি ক্লিনিক নেতা-কর্মীদের সতর্ক থাকার আহ্বান শেখ হাসিনার, জানালেন কাদের রংপুরে নিহত শিক্ষার্থী আবু সাঈদের জানাজা-দাফন সম্পন্ন ক্যাম্পাস ছাড়ছেন রংপুর বেরোবি শিক্ষার্থীরা, সতর্ক অবস্থানে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী বেরোবি অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা শিক্ষার্থীদের ধাওয়া খেয়ে ক্যাম্পাস ছেড়েছে বেরোবি ছাত্রলীগ

রংপুরে ব্রয়লারের কেজি ২৬০, দেশি ৫৫০ টাকা

ডেস্ক রিপোর্ট
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ১৪ মার্চ, ২০২৩
  • ৭২ জন নিউজটি পড়েছেন

 

স্টাফ রিপোর্টার:
রংপুরে সপ্তাহের ব্যবধানে আরও বেড়েছে মুরগির দাম। ধনেপাতা, ফুলকপি ও মটরশুঁটিসহ কিছু সবজির দামও ঊর্ধ্বমুখী। তবে কমেছে রসুন ও সজনে ডাঁটার দাম। মাছ, চাল, ডাল ও তেলের দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।

মঙ্গলবার (১৪ মার্চ) রংপুর নগরীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা যায়, খুচরা বাজারে ব্রয়লার মুরগি ২১০-২২০ টাকা থেকে বেড়ে ২৫০-২৬০ টাকা, পাকিস্তানি মুরগি ৩১০-৩২০ টাকা থেকে বেড়ে ৩৪০-৩৫০ টাকা এবং দেশি মুরগি ৪৬০-৪৭০ টাকা থেকে বেড়ে ৫৪০-৫৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। আর পাকিস্তানি লেয়ার বিক্রি হচ্ছে ২৮০ টাকায়।

গরুর মাংস গত সপ্তাহের মতোই ৬৭০-৭০০ টাকা এবং ছাগলের মাংস ৯০০-১০০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

মুলাটোল আমতলা বাজারের মুরগি বিক্রেতা আল-আমিন জাগো নিউজকে বলেন, ‘মুরগির বাজার নিয়ন্ত্রণ করছে সিন্ডিকেট। কিছু কোম্পানি খামারিদের কাছ থেকে সরাসরি মুরগি কিনে বাজার নিয়ন্ত্রণ করছে। এতে সাধারণ দোকানিরা চড়া দামে মুরগি কিনতে বাধ্য হচ্ছেন। ফলে খুচরা বাজারে প্রভাব পড়ছে।’

বাজারে মুরগি কিনতে আসা রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘গরিবের মাংসের স্বাদ পূরণ করে ব্রয়লার। ১২০-১৩০ টাকার সেই ব্রয়লার এখন ২৫০-২৬০ টাকায় কিনতে হচ্ছে।

সবজি বাজার ঘুরে দেখা যায়, প্রতি কেজি টমেটো গত সপ্তাহের মতো ২৫-৩০ টাকা, গাজর ২৫-৩০ টাকা, শসা ২৫-৩০ টাকা, চিকন বেগুন ৩৫-৪০ টাকা থেকে কমে ২০ টাকা, গোল বেগুন ৪৫-৫০ টাকা থেকে কমে ৩০ টাকা, পেঁপে ১৫-২০ টাকা, উচ্ছে ১৬০-১৭০ টাকা থেকে কমে ১১০-১২০ টাকা, লেবু হালি ১৫-২০ টাকা, কাঁচামরিচ ১৩০-১৪০ টাকা থেকে কমে ৮০ টাকা, শুকনা মরিচ আগের মতোই ৪৫০-৫০০ টাকা, প্রতি পিস লাউ আকারভেদে দাম ৩০-৪০ টাকা, ধনেপাতার কেজি ৩৫-৪০ টাকা থেকে বেড়ে ৭০-৮০ টাকা, কাঁচকলা হালি ২৫-৩০ টাকা, প্রতি কেজি মিষ্টিকুমড়া ৩০-৩৫ টাকা, শিম ৩৫-৪০ টাকা থেকে কমে ২৫-৩০ টাকা, বাঁধাকপি ১০ টাকা পিস এবং ফুলকপি ১০-১৫ টাকা থেকে বেড়ে ৩০-৪০ টাকা কেজি দরে বক্রি হচ্ছে।

আদা ১৩০-১৪০ টাকা এবং রসুন ১৩০-১৪০ টাকা থেকে কমে ১১০-১২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। বাজারে সবধরনের শাকের আঁটি পাওয়া যাচ্ছে ১০-১৫ টাকায়। এছাড়া সজনে ডাঁটা ২২০-২৪০ টাকা থেকে কমে ১৫০-১৬০ টাকা, মিষ্টি আলু আগের মতোই ৩৫-৪০ টাকা, পটোল ৭০-৮০ টাকা থেকে কমে ৫৫-৬০ টাকা, ঢেঁড়শ ১০০-১২০ টাকা থেকে কমে ৭০-৮০ টাকা এবং মটরশুঁটি ৪০-৪৫ টাকা থেকে বেড়ে ৭০-৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

খুচরা বাজারে নতুন কার্ডিনাল আলু ১৫-১৬ টাকা, শিল ও ঝাউ আলু ৩০-৩৫ টাকা কেজি দরে পাওয়া যাচ্ছে। আর দেশি পেঁয়াজ ৩০-৩৫ টাকা এবং আমদানি করা ভারতীয় পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ২৫ টাকা কেজি দরে।

সিটি বাজারের সবজি বিক্রেতা মকবুল মিয়া বলেন, আমদানির ওপর নির্ভর করে সবজির বাজার ওঠানামা করছে।

বাজার ঘুরে দেখা যায়, খুচরা বাজারে এক লিটার বোতলজাত সয়াবিন ১৮৭ টাকা, দুই লিটার ৩৭৪ টাকা এবং খোলা সয়াবিন তেল ১৬০-১৯০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

স্বর্ণা চাল গত সপ্তাহের মতোই ৫০-৫২ টাকা, পাইজাম ৫৪-৫৫ টাকা, বিআর২৮ ৬০-৬৫ টাকা, মিনিকেট ৭৫-৭৮ টাকা ও নাজিরশাইল ৮৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

বাজার ঘুরে দেখা যায়, খুচরা বাজারে খোলা চিনি গত সপ্তাহের তুলনায় মতোই ১১৫-১২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। প্যাকেট আটার দাম কমে ৬৫-৬৮ টাকা ও খোলা আটা ৫৮-৬০ টাকা, ছোলা ৯৫-১০০ টাকা এবং প্যাকেট ময়দা ৭৮-৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

বাজারে আগের মতোই মসুর ডাল (মাঝারি) ১১০-১২০ টাকা, চিকন ১৩০-১৪০ টাকা, মুগডাল ১৪০-১৫০ টাকা এবং বুটডাল ৯৫-১০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। আর পোলট্রি মুরগির ডিমের হালি ৪০-৪২ টাকা।

মাছের বাজার ঘুরে দেখা যায়, আকারভেদে রুইমাছ ২৫০-৩০০ টাকা, মৃগেল ২২০-২৫০ টাকা, কার্প ২০০-২২০ টাকা, পাঙাশ ১৫০-১৬০ টাকা, তেলাপিয়া ১৪০-১৬০, কাতলা ৪০০-৪৫০ টাকা, বাটা ১৬০-১৮০ টাকা, শিং ৩০০-৪০০ টাকা, সিলভার কার্প ১৫০-২৫০ টাকা এবং গছিমাছ ৬০০-৬৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

 

আপনার সোস্যাল মিডিয়ায় শেয়ার দিন

Leave a Reply

এই ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ

© ২০২৩ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | রংপুর সংবাদ.কম
Theme Customization By NewsSun