1. rkarimlalmonirhat@gmail.com : Rezaul Karim Manik : Rezaul Karim Manik
  2. kibriyalalmonirhat84@gmail.com : Golam Kibriya : Golam Kibriya
  3. mukulrangpur16@gmail.com : Saiful Islam Mukul : Saiful Islam Mukul
  4. maniklalrangpur@gmail.com : রংপুর সংবাদ : রংপুর সংবাদ
তিস্তার পানিতে সহস্রাধিক পরিবার পানিবন্দী রাস্তা ও উপ-বাঁধ নদীগর্ভে বিলীন | রংপুর সংবাদ
বুধবার, ১৬ জুন ২০২১, ১১:১২ অপরাহ্ন

তিস্তার পানিতে সহস্রাধিক পরিবার পানিবন্দী রাস্তা ও উপ-বাঁধ নদীগর্ভে বিলীন

আব্দুর রহিম পায়েল,গংগাচড়া (রংপুর) প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় : শনিবার, ২৯ মে, ২০২১

ইয়াস পরবর্তী ভারত থেকে নেমে আসা উজানের ঢলে তিস্তা নদীতে পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় উপজেলার তিস্তা তীরবর্তী চরগুলো প্লাবিত হয়েছে।

 

এতে চরাঞ্চলের ৭টি ইউনিয়নে প্রায় এক হাজারের অধিক পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। তলিয়ে গেছে মরিচ, কুমড়া, বেগুন, বাদাম, ভূট্টা, পাটসহ নানান জাতের ফসলের ক্ষেত। বন্যায় লহ্মিটারী ইউনিয়নের বাগেরহাট-মটুকপুর সড়ক ও কোলকোন্দ ইউনিয়নের বিনবিনা এলাকায় নবনির্মিত একটি উপ-বাঁধের কিছু অংশ পানির ¯্রােতে ভেঙ্গে গেছে। গতকাল শনিবার দুপুরে তিস্তার ডালিয়া পয়েন্টে পানি বিপদ সীমার ৩০ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল।

 

প্লাবিত এলাকা পরিদর্শন করেন উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মুনিমুল হক ও লহ্মিটারী ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল্লা আল হাদী।

চেয়ারম্যান হাদী জানান, ইউনিয়নের পশ্চিম ইচলী, মধ্য ইচলী ও জয়রামওঝা গ্রামের প্রায় ৩০০ পরিবার আকস্মিক বন্যায় পানিবন্দি হয়ে পড়েছে।
কোলকোন্দ ইউনিয়নের বিনবিনা গ্রামবাসীরা জানান, গত শুক্রবার (২৮ মে) দিবাগত রাত থেকে তিস্তার প্রবল স্রোতে বিনবিনা এলাকায় নবনির্মিত একটি উপ-বাঁধের প্রায় ১৫০ মিটার নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে। প্রায় ৫০০ মিটার দৈর্ঘের এ বাঁধটি ইউপি চেয়ারম্যান সোহরাব আলী রাজুর নেতৃত্বে স্থানীয় জনগণের সহযোগীতায় নির্মাণ করা হয়েছিল। বাধটি ভেঙ্গে যাওয়ায় বিনবিনা গ্রামের শতাধিক পরিবার পানিবন্দি হয়ে পরেছে বলে ইউপি চেয়ারম্যান জানান।

এছাড়াও বন্যার ফলে নোহালী ইউনিয়নের চর বাগডহরা, মিনা বাজার, আলমবিদিতর ইউনিয়নের ব্যাংক পাড়া, লক্ষীটারী ইউনিয়নের ইচলী, বাগের হাট, জয়রাম ওঝা, চল্লিশ সাল, গজঘন্টা ইউনিয়নের ছালাপাক, মর্ণেয়া ইউনিয়নের বড় রুপাই, ছোট রুপাই নরসিংহসহ বেশকটি এলাকা প্লাবিত হয়েছে। এসব এলাকায় প্রায় আরও এক হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পরেছে।

রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আহসান হাবীব জানান, ঘুর্নিঝড় ইয়াস এর প্রভাবে পানি বৃদ্ধি পেয়েছে, দ্রুতই পানি কমে যাবে।

আপনার সোস্যাল মিডিয়ায় শেয়ার দিন

এই ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ

© ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | রংপুর সংবাদ.কম
Theme Customization By NewsSun