রংপুর সংবাদ » স্বমহিমায় সমুজ্জ্বল

স্বমহিমায় সমুজ্জ্বল


রংপুর সংবাদ জানুয়ারী ১০, ২০২১, ১০:২২ পূর্বাহ্ন
স্বমহিমায় সমুজ্জ্বল

 

ইমদাদুল হক মিলন।  ১২ বছরে পা রাখল আমাদের প্রিয় পত্রিকা কালের কণ্ঠ। ১১ বছর পূর্ণ হওয়া একটি পত্রিকার জন্য অনেক বড় ঘটনা। আমরা সেই ঘটনা ঘটিয়েছি। সংগত কারণেই এ নিয়ে আমরা আনন্দিত, গর্বিত। আমরা পেরেছি। একটি বড় জায়গায় কালের কণ্ঠকে এনে দাঁড় করাতে পেরেছি। এই যাত্রায় আমাদের সঙ্গে ছিল অগণিত পাঠক আর শুভানুধ্যায়ী। দেশের সর্বস্তরের মানুষের ভালোবাসা ছিল আমাদের প্রধান শক্তি। পাঠকসাধারণের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা রেখে পত্রিকাটি আমরা প্রকাশ করে গেছি। এই শ্রদ্ধা কালের কণ্ঠ আজীবন বজায় রাখবে। আমরা বিশ্বাস করি, পাঠকই কালের কণ্ঠ’র সবচাইতে বড় শক্তি, বড় শ্রদ্ধার জায়গা। তাদের হাতে প্রতিদিন একটি গ্রহণযোগ্য পত্রিকা তুলে দেওয়ার চেষ্টা ১১ বছর ধরে আমরা নিষ্ঠার সঙ্গে করে গেছি। আগামী দিনেও এই নিষ্ঠা দৃঢ়ভাবে বজায় রাখব।

আমাদের স্লোগান ‘আংশিক নয়, পুরো সত্য’। এই স্লোগানের স্বাক্ষর আমরা কালের কণ্ঠে রাখবার চেষ্টা করেছি। সংবাদের ভিতরকার সত্য সত্ভাবে প্রকাশ করার চেষ্টা করেছি। অসততা আমাদের স্পর্শ করতে পারেনি। তবে আমরা নিরপেক্ষ নই। আমরা বাংলাদেশের ১৭ কোটি মানুষের পক্ষে। দেশের প্রতিটি সাধারণ মানুষ, প্রতিটি সুবিধাবঞ্চিত মানুষের পক্ষে কালের কণ্ঠ। দেশের মানুষই আমাদের মূলশক্তি। কালের কণ্ঠ বাঙালি জাতির পক্ষের পত্রিকা।
এক ঐতিহাসিক দিনে যাত্রা শুরু করেছিল কালের কণ্ঠ। ১০ জানুয়ারি ২০১০। বাঙালি জাতির জন্য এই দিনটি বিশাল অহংকারের। ১৯৭২ সালের এই দিনে পাকিস্তানের কারাগার থেকে মুক্ত হয়ে তাঁর স্বাধীন বাংলাদেশে ফিরে এসেছিলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ১০ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস। এই দিবসের কথা গভীর শ্রদ্ধায় স্মরণে রেখে কালের কণ্ঠ শুরু করেছিল তার যাত্রা। বঙ্গবন্ধুকে মাথার ওপরে রেখে আর মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বুকে ধারণ করে এগিয়েছে কালের কণ্ঠ। আমাদের চেতনায় মুক্তিযুদ্ধ, হৃদয়ে বাংলাদেশ। এই মন্ত্রই কালের কণ্ঠকে এত দূর নিয়ে এসেছে। ১২ বছরে পা রেখে আমরা স্মরণ করছি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। স্মরণ করছি চার জাতীয় নেতাকে। স্মরণ করছি ’৭৫-এর সেই ভয়াল রাতে বঙ্গবন্ধু পরিবারের যাঁরা শহীদ হয়েছেন তাঁদের প্রত্যেককে। স্মরণ করছি ’৭১-এর মুক্তিযুদ্ধে শহীদ হওয়া ৩০ লাখ বাঙালিকে আর বীর মুক্তিযোদ্ধাদের।

শুধু পত্রিকা প্রকাশ করেই আমরা আমাদের দায়িত্ব শেষ করিনি। কোনো কোনো প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে আমরা সম্মানিত করেছি বীর মুক্তিযোদ্ধাদের, সম্মানিত করেছি বীরাঙ্গনা মুক্তিযোদ্ধাদের। মুক্তিযুদ্ধে যেসব মা হারিয়েছেন তাঁদের বীর মুক্তিযোদ্ধা সন্তান, সেই মায়েদের আমরা সম্মাননা জানিয়েছি। মুক্তিযোদ্ধাদের হাতে তুলে দিয়েছি অর্থ ও স্মারক। এক বছর ধরে সারা দেশ তন্ন তন্ন করে খুঁজে বের করেছি ১৫ জন বীরাঙ্গনা মুক্তিযোদ্ধা। খুঁঁজতে গিয়ে দেখেছি, তাঁদের সম্ভ্রমের বিনিময়ে অর্জিত এই বাংলাদেশে সেই শ্রদ্ধেয় মানুষগুলোর অনেকেরই তিন বেলার আহার জোটে না। কেউ আছেন মৃত্যুশয্যায়, কেউ আছেন জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে। ঘরে খাবার নেই, ওষুধ নেই। ধুঁকে ধুঁকে এগোচ্ছেন মৃত্যুর দিকে। কালের কণ্ঠ তাঁদের পাশে দাঁড়িয়েছে। তাঁদের প্রত্যেকের হাতে এক লাখ করে টাকা পৌঁছে দিয়েছি আমরা। তারপর ১৫ জন মুক্তিযোদ্ধাকে সম্মানিত করেছি। সারা দেশের সর্বজন শ্রদ্ধেয় শিক্ষকদের সম্মানিত করেছি। এই প্রচেষ্টা আমরা অব্যাহত রাখব।

যাত্রার শুরু থেকেই কালের কণ্ঠ ঘিরে আমরা একটি সামাজিক সংগঠন প্রতিষ্ঠা করেছি। সেই সংগঠনের নাম ‘কালের কণ্ঠ শুভসংঘ’। এই সংগঠনের স্লোগান ‘শুভ কাজে সবার পাশে’। কালের কণ্ঠ শুভসংঘ এখন দেশের বৃহত্তম সামাজিক সংগঠন। লাখ লাখ ছেলে-মেয়ে এই সংগঠনের সঙ্গে কাজ করছে। প্রতিদিনই দেশের কোনো না কোনো এলাকায় শুভ কাজ করছে কালের কণ্ঠ শুভসংঘের সদস্যরা। করোনাকালে ব্যাপকহারে মাস্ক বিতরণ করে চলেছে, শীতার্তদের মাঝে কম্বল বিতরণ করে চলেছে, বর্ষায় গাছের চারা বিতরণ করছে লাখ লাখ, বই পড়ায় উদ্বুদ্ধ করছে, পরিচ্ছন্নতার কাজ করছে, অসহায় ছাত্র যারা টাকার অভাবে পড়তে পারছে না তাদের আর্থিক সহায়তা দিচ্ছে, ভর্তি হতে পারছে না, ভর্তি করাচ্ছে, দুস্থদের চিকিৎসা করাচ্ছে, গরু কিনে দিচ্ছে, ছাগল কিনে দিচ্ছে, ঘর তুলে দিচ্ছে, দোকান করে দিচ্ছে, কেউ কেউ পথশিশুদের স্কুল চালাচ্ছে। নীলফামারীর রামগঞ্জ কলেজের আড়াইশো ছাত্র-ছাত্রীকে তাদের পুরো বছরের বই খাতা ব্যাগ দেওয়া হচ্ছে। এ রকম ছোট-বড় অজস্র কাজ কালের কণ্ঠ শুভসংঘ প্রতিনিয়ত করছে।
করোনার এই অতিমারির কালেও পত্রিকার কার্যক্রম বিন্দুমাত্র ব্যাহত হতে দিইনি আমরা। অনেকেই বাসায় বসে কাজ করেছেন। আবার অনেকেই নিয়মিত অফিস করেছেন। আমাদের বহু সহকর্মী করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। পরম করুণাময়ের দয়ায় কোনো প্রাণহানি আমাদের মধ্যে হয়নি। এসব বলার কারণ যেকোনো দুর্যোগ বা ঝড়ঝঞ্ঝা বা প্রতিকূলতার মধ্যেও কালের কণ্ঠকে বুক দিয়ে আগলে রাখার প্রবণতা এই পত্রিকার কর্মীদের সবার মধ্যেই দৃঢ়ভাবে বিদ্যমান।

দেশের বৃহত্তম শিল্পগোষ্ঠী বসুন্ধরার অঙ্গ সংগঠন ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ। কালের কণ্ঠ সেই গ্রুপের দৈনিক। বসুন্ধরা গ্রুপের স্লোগান ‘দেশ ও মানুষের কল্যাণে’। এই গ্রুপের প্রতিটি প্রতিষ্ঠান পরিচালিত হয় দেশ ও মানুষের কল্যাণের কথা ভেবে। গ্রুপ চেয়ারম্যান জনাব আহমেদ আকবর সোবহান বলেন, ‘মানুষের কল্যাণ হলে দেশের কল্যাণ হয়। মানুষ বড় হলে দেশ বড় হয়।’ কালের কণ্ঠ এই মন্ত্রে উজ্জীবিত হয়ে পথ চলছে।

বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দুর্বার গতিতে এগিয়ে চলেছে বাংলাদেশ। উন্নয়নের জোয়ার বইছে দেশে। নিজস্ব অর্থায়নে তৈরি হচ্ছে পদ্মা সেতু। কর্ণফুলীর তলদেশে হচ্ছে টানেল। এ ছাড়া আরো কত বড় বড় প্রকল্পের কাজ চলছে। বঙ্গবন্ধু আমাদের হাতে তুলে দিয়েছেন বাংলাদেশ আর তাঁর কন্যা তৈরি করে দিচ্ছেন পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা। দেশের প্রতিটি অর্জন ও গৌরবকে আমরা কালের কণ্ঠ’র মধ্য দিয়ে মানুষের কাছে তুলে ধরতে চাই। মানুষের প্রতি ভালোবাসা ও দায়বদ্ধতা নিয়ে সৎ ও সত্য সংবাদ পরিবেশনের মধ্য দিয়ে কালের কণ্ঠ আমরা এগিয়ে নেব। আজকের এই শুভ দিনে আমাদের একমাত্র প্রতিজ্ঞা, দেশ ও মানুষের কল্যাণে নিবেদিত থাকবে কালের কণ্ঠ।

আমাদের পাঠক, শুভানুধ্যায়ী, লেখক, বিজ্ঞাপনদাতা ও কালের কণ্ঠকে যাঁরা ভালোবাসেন তাঁদের প্রত্যেককে শ্রদ্ধা, শুভেচ্ছা ও ভালোবাসা।