রংপুর সংবাদ » রংপুর বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় অনিয়ম নিয়ে টাঙানো হলো বোর্ড

রংপুর বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় অনিয়ম নিয়ে টাঙানো হলো বোর্ড


রংপুর সংবাদ ডিসেম্বর ১২, ২০১৯, ৫:০৮ অপরাহ্ন
রংপুর বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়  অনিয়ম নিয়ে টাঙানো হলো বোর্ড

রংপুর প্রতিনিধিঃ

রংপুর বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায় অনিয়ম নিয়ে বিভিন্ন অভিযোগ-সংবলিত একটি বোর্ড টাঙিয়ে দেওয়া হয়েছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার সচেতন শিক্ষকদের ব্যানারে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের পাশে বোর্ডটি টাঙানো হয়। এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের নানা অনিয়ম তদন্তের জন্য ইউজিসি সদস্যদের দিয়ে তদন্ত কমিটি গঠনেরও আহবান জানিয়েছেন সচেতন শিক্ষক সমাজ ।

এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সাবেক সভাপতি ও আন্দোলনকারী শিক্ষক নেতা ড.তুহিন ওয়াদুদ বলেন, ভর্তিতে অনিয়ম-দুর্নীতি একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের সবচেয়ে বড় অপরাধ। এছাড়া এই বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিটি ক্ষেত্রে অনিয়ম-দুর্নীতি বহমান।

তাই এসব থেকে বিশ্ববিদ্যালয়টিকে রক্ষার জন্যই সচেতন শিক্ষকদের এই আন্দোলন। সবাইকে সচেতন করার জন্যই তৈরি করা হয়েছে ব্যতিক্রমী এই বোর্ডটি।বোর্ডটির শিরোনাম দেওয়া হয়েছে ‘কার কী তাতে?’ এতে ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষে ভর্তি পরীক্ষায় বিভিন্ন বিষয়ে অস্বচ্ছতাসহ ২১টি বিষয় তুলে ধরা হয়েছে। নিচে লেখা হয়েছে-আমরা দেখতে চাই কার কী তাতে?

গতকাল বেলা ১১টার দিকে ক্যাম্পাাসের প্রশাসনিক ভবনের সামনে বোর্ডটির মোড়ক উন্মোচন করেন বাণিজ্য অনুষদের সাবেক ডিন মতিউর রহমান।

এরপর সেখানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন বাংলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক তুহিন ওয়াদুদ, গণিত বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক কমলেশ চন্দ্র রায় ও মশিউর রহমান, রসায়ন বিভাগের প্রধান এইচ এম তারিকুল ইসলাম প্রমুখ।

শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক এবং ফিন্যান্স ও ব্যাংকিং বিভাগের প্রধান খায়রুল কবীর অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন। পরে বোর্ডটি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনের টাঙানো হয়। এতে এবার প্রথম বর্ষে ভর্তি পরীক্ষায় একাধিক অনিয়মের কথা উল্লেখ করা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে উপাচার্যের জ্যেষ্ঠ শিক্ষকদের বাদ দিয়ে নতুন শিক্ষকদের নিয়ে ভর্তি কার্যক্রম পরিচালনা, ভর্তি পরীক্ষায় অস্বচ্ছতা ইত্যাদি।

অনুষ্ঠান চলাকালে বক্তারা বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের একজন শিক্ষকের ছোট বোন এবার ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষে ভর্তি পরীক্ষায় দুটি ইউনিটে সর্বনি¤œ নম্বর পেয়ে অকৃতকার্য হন। পরে তিনি সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ‘বি’ ইউনিটে রেকর্ড পরিমাণ নম্বর পেয়ে প্রথম স্থান অধিকার করেন। তাঁরা এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত করে জড়িত ব্যক্তিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।

জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়টির রেজিষ্ট্রার আবু হেনা মুস্তাফা কামাল বলেন, ভর্তি পরীক্ষায় স্বজনপ্রীতির অভিযোগ ওঠায় ‘বি’ ইউনিটের ওই পরীক্ষার্থীর ভর্তি ইতিমধ্যে স্থগিত করা হয়েছে।

গত শনিবার সন্ধায় এক নির্বাহী আদেশে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। ঘটনাটি খতিয়ে দেখতে তিন সদস্যবিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। তবে তদন্ত প্রতিবেদন এখনও হাতে পাওয়া যায়নি বলেও জানান তিনি।

মাহির/রংপুর সংবাদ