1. rkarimlalmonirhat@gmail.com : Rezaul Karim Manik : Rezaul Karim Manik
  2. kibriyalalmonirhat84@gmail.com : Golam Kibriya : Golam Kibriya
  3. mukulrangpur16@gmail.com : Saiful Islam Mukul : Saiful Islam Mukul
  4. maniklalrangpur@gmail.com : রংপুর সংবাদ : রংপুর সংবাদ
আত্মার বন্ধন ও সম্পর্ক যে ছিন্ন হয়নি সেটা বুঝেছি প্রিয় লালমনিরহাটে - রংপুর সংবাদ
মঙ্গলবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২২, ০২:২১ পূর্বাহ্ন

আত্মার বন্ধন ও সম্পর্ক যে ছিন্ন হয়নি সেটা বুঝেছি প্রিয় লালমনিরহাটে

রাকিবুজ্জামান আহমেদ
  • আপডেট সময় : বুধবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০২১

ঠিক কোন ভাষায় শুরু করবো বুঝতে পারছি না। করোনা মহামারির দীর্ঘ সময় পরে আমার প্রিয় মানুষগুলোর মাঝে যাওয়ার পর যে ভালোবাসা পেয়েছি, যে সন্মান পেয়েছি তা প্রকাশ করার জন্য সম্ভবত পৃথিবীতে কোনও ভাষা আবিষ্কৃত হয়নি। এ যেন অনির্বচনীয় উপলব্ধি।

বিশ্বজুড়ে করোনা ভাইরাস মানুষের জাগতিক পদচারণা থামিয়ে দিতে পেরেছিল ঠিকই, কিন্তু আত্মার বন্ধন ও সম্পর্ক যে ছিন্ন হয়নি সেটা বুঝেছি এবার আমার প্রিয় এলাকা লালমনিরহাট আদিতমারী-কালীগন্জ সফর করার পর। সত্যি বলতে কি দীর্ঘদিন সামাজিক দূরত্ব মেনে চলার স্বার্থে অনেকের সাথে অনেকের দেখা-সাক্ষাৎ হয়নি- কিন্তু একবারের জন্যও আপনাদেরকে মন থেকে ভুলিনি। আপনারাও ভুলেননি । আপনারা আমার আত্মার পরম আত্মীয়।

আপনাদের দোয়ায় , আদর, স্নেহ, মায়ায়,ভালবাসায়,ব্যবহার, আচরণে আমি আপনাদের প্রতি কৃতজ্ঞ। রাসুল (সা.) বলেন, ‘যে ব্যক্তি মানুষের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে না, সে আল্লাহর প্রতিও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে না।’ অথবা ‘যে ব্যক্তি মানুষের প্রতি কৃতজ্ঞ নয়, সে আল্লাহর প্রতিও অকৃতজ্ঞ।’ (আবু দাউদ, হাদিস : ৪৮১১)

অতীতেও সবসময়ই আপনারা আমাদের পরিবারের পাশে ছিলেন। মানবসেবা থেকে শুরু করে সমাজের প্রতিটি কল্যাণমূলক কাজে আপনারা যেমন আমার দাদার পাশে ছিলেন, আমার বাবার পাশে ছিলেন, তেমনি সমান উৎসাহ , আগ্রহ ,ভালবাসা এবং অকুষ্ঠ সমর্থন দিয়ে আমারও পাশে ছিলেন। এবং আমাকে সব ধরনের সহযোগিতা ও
সহায়তা করেছেন। জন এফ কেনেডির ভাষায় বলতে হচ্ছে- ‘জীবনে আমাদেরকে মাঝে মাঝে থামা উচিত এবং কিছু সময় নেয়া উচিত তাদেরকে ধন্যবাদ দেয়ার জন্য যারা আমাদের জীবনকে ভিন্ন করে তোলে।’

আমার একান্ত প্রত্যাশা সামনের দিনগুলোতেও আপনারা এভাবেই আমার পাশে থাকবেন। আমার পথচলার প্রেরণা হবেন ভাই হিসেবে, সন্তান হিসেবে, বন্ধু হিসাবে,বাস্তবতার প্রয়োজনে হয়তো আবার শহরে ফিরতে হয়েছে, কিন্তু মন আমার আপনাদের কাছেই পড়ে রয়েছে। আপনারা আমার জন্য দোয়া করবেন যেন, জীবনের শেষ দিনটি পর্যন্ত আপনাদের পাশে থাকতে পারি।

আমরা সবাই মিলে গড়বো নিজেদের জন্য একটি নিরাপদ ও মানবিক পরিবার ও সমাজ, যেখানে থাকবে না কোনো হিংসা-প্রতিহিংসা কিংবা কোনো ধরনের দমন-পীড়ন।

আমরা সবাই জানি, মানুষের প্রতি বঙ্গবন্ধুর ভালোবাসা ছিল সীমাহীন। তিনি বাংলাদেশের জনগণকে নিজ সন্তানের মতোই ভালোবাসতেন। ব্রিটিশ সাংবাদিক ডেভিড ফ্রস্টের ‘আপনার সবচেয়ে বড় যোগ্যতা কী’ এ প্রশ্নের জবাবে বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, ‘আমি আমার দেশের মানুষকে ভালোবাসি।’ ডেভিড ফ্রস্টের ‘আপনার বড় দুর্বলতাটা কী’- এ প্রশ্নের উত্তরে বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, ‘আমি আমার দেশের মানুষকে বেশি ভালোবাসি।’

এ কথার মাধ্যমে জনগণের প্রতি জাতির পিতার অকৃত্রিম ভালোবাসা প্রকাশের সঙ্গে সঙ্গে জনগণের প্রতি বিশ্বাসেরও বিষয়টিও সুস্পষ্ট। বঙ্গবন্ধুর সমগ্র জীবনটাই ছিল যেন মানুষকে ভালোবাসার। দেশকে ভালোবাসতে হবে, দেশের মানুষকে ভালোবাসতে হবে এটা ছিল বঙ্গবন্ধুর জীবনের অন্যতম দর্শন।

বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাও কোটি বাঙালির স্বপ্নের দিগন্ত দিন দিন প্রসারিত করেই চলছেন। দীর্ঘদিনের অচলায়তন ভেঙে উচ্চ প্রবৃদ্ধির সোপানে আরোহণ এবং মাথাপিছু আয়ের ধারাবাহিক উত্তরণ ঘটিয়ে ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত ও সমৃদ্ধশালী দেশের কাতারে শামিল হওয়ার জন্য উপযোগী করেছে বাংলাদেশকে। বর্তমানে দেশটি সমৃদ্ধির পথে আরও কয়েক ধাপ এগিয়েছে।

রূপকল্প ২০২১-কে সামনে রেখে যখন ২০০৯ সালে সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গঠনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অভিযাত্রা হয়, তখন অনেকেই আজকের দৃশ্যমান এই স্বপ্নকে বিলাসিতা, আকাশকুসুম ভাবনা বলেছিলেন। শুরুর সময়টা বিশ্ব যেমন ছিল মন্দা-কবলিত, তেমনি দেশের অভ্যন্তরীণ পরিবেশও ছিল মারাত্মক নাজুক বৈকি। কিন্তু শেখ হাসিনার সময়োপযোগী দৃঢ় পদক্ষেপের কারণেই দেশের আর্থ-সামাজিক প্রতিটি সূচকে লক্ষণীয় অগ্রগতি সাধিত হয়েছে।

বাংলাদেশ প্রতিনিয়তই উন্নয়ন আর অগ্রগতির নতুন মাইলফলক স্পর্শ করছে। দেশটি নিজেই নিজের রেকর্ড ভেঙে নতুন রেকর্ড আর ইতিহাস গড়ে যাচ্ছে। সাম্প্রতিক সময়ে অর্থনৈতিক ও সামাজিক খাতে উন্নয়ন নতুন করে আশার আলো দেখাচ্ছে। সামাজিক ও অর্থনৈতিক খাতে নারী-পুরুষের বৈষম্য কমানোর ক্ষেত্রে বাংলাদেশ দুই ধাপ পিছিয়েছে। দেশের এই পিছিয়ে যাওয়াই হচ্ছে বাংলাদেশে নারী-পুরুষের মধ্যে সমতা নিরূপণের দৌড়ে এগিয়ে যাওয়া। বিশ্বের ১৫৩টি দেশের মধ্যে এখন বাংলাদেশের অবস্থান ৫০তম। ডব্লিউইএফ-এর বৈশ্বিক নারী-পুরুষের বৈষম্য প্রতিবেদনে এমন তথ্যই প্রকাশ হয়েছে।

সবশেষে বলি আমি আপনাদেরই ছেলে। আপনাদের ভাই। আপনাদের বন্ধু। সবাইকে সঙ্গে নিয়ে বাকি জীবন শেষ করতে চাই। আমাকে পাশে রাখবেন। পাশে থাকবেন।

সবাই আমার জন্য দোয়া করবেন।

রুডইয়ার্ড কিপলিং-এর কবিতার ভাষায় বলবো-
যদি তুমি সাধারণ মানুষের সঙ্গে চলার সময়ও তোমার বিনয় ধরে রাখতে পারো
আর রাজাধিরাজের সঙ্গে চলার সময়ও সাদাসিধে ভাবটা হারিয়ে না ফেলো,
যদি শত্রু কিংবা সহৃদয় বন্ধুও তোমাকে আঘাত দিতে না পারে,
যদি সব মানুষ তোমার ওপরে নির্ভর করে, কিন্তু কেউই খুব বেশি নির্ভরশীল হয়ে না পড়ে,
যদি তুমি ক্ষমাহীন একটা মিনিটকে ভরে তুলতে পারো ষাট সেকেন্ডের দৌড়ের সমান মর্যাদায়,
তাহলে
তাহলে এই পৃথিবী তোমার, এই পৃথিবীতে যা কিছু আছে সব তোমার;
এবং তারও চেয়ে বড় কথা, তুমি হয়ে উঠবে একজন মানুষ, পুত্র আমার।

আপনার সোস্যাল মিডিয়ায় শেয়ার দিন

এই ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ

© ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | রংপুর সংবাদ.কম
Theme Customization By NewsSun