শনিবার, ০৪ জুলাই ২০২০, ০১:১৯ পূর্বাহ্ন

তিস্তার পানি বিপদ সীমার ফের ২০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত

রংপুর সংবাদ
  • প্রকাশের সময়ঃ শুক্রবার, ২৬ জুন, ২০২০
  • ৫৭ জন দেখেছেন

মাহির খানঃভারী বর্ষণ ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে তিস্তা নদীর ক্রমেই বৃদ্ধি পেয়ে লালমনিরহাটের ৫টি উপজেলার তিস্তা চর অঞ্চল গুলো প্লাবিত হয়েছে।

শুক্রবার ৯ টায় লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা দোয়ানী তিস্তা ব্যারাজ পয়েন্টে তিস্তার পানি বিপদ সীমার ২০ সেন্টিমিটর উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। তিস্তা ব্যারেজ দোয়ানী পয়েন্টে তিস্তা পানি প্রবাহ রেকর্ড করা হয় ৫২ দশমিক ৮০ সেন্টিমিটার। ব্যারাজ রক্ষার্থে ৪৪টি জলকপাট খুলে পানির প্রবাহ নিয়ন্ত্রণ করছেন পানি উন্নায়ন বোর্ড।

জানা গেছে, গত কয়েক দিন ধরে ভারী বর্ষণ আর উজানের ঢলের কারণে তিস্তা নদীর চর এলাকা গুলোতে লোকজন পানি বন্দি হয়ে পড়েছে। পানি বৃদ্ধিতে চরের লোকজন চরম বিপাকে আছেন। উজানের পানি ও ভারী বর্ষণের কারণে বন্যা ও জলবন্ধতা দেখা দিয়েছে।

এ দিকে পানি বৃদ্ধির ফলে জেলার ৫ টি উপজেলার নদীর চরাঞ্চলের কয়েক হাজার পরিবার পানি বন্দী হয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যানগন জানিয়েছেন।

সদর উপজেলা রাজপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোফাজ্জল হোসেন জানান, আমার ইউনিয়নের অধিকাংশ লোজ জনই পানি বন্দি হয়ে পড়েছে।

গড্ডিমারী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আতিয়ার রহমান জানান, গড্ডিমারীর ১,২ ও ৩ নং ওয়ার্ডের পরিবারগুলো নদীর পানি বৃদ্ধিতে প্রতিনিয়তেই দুর্ভোগে পরেন। নতুন করে দেখা দিয়েছে নদী ভাঙ্গন। তিস্তার পানি বৃদ্ধি পেয়ে নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হচ্ছে বলেও তিনি জানান।

পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো)’র দোয়ানী ডালিয়া’র নির্বাহী প্রকোশীলী রবিউল ইসলাম জানান, বৃষ্টি আর উজানের ঢলের কারণে তিস্তা নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় চর এলাকার কিছু পরিবার পানি বন্দি হয়ে পড়েছে। পানি বিপদসীমার ২০ সে:মি: উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে বলেও জানান পাউবোর এই কর্মকর্তা।

লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক (ডিসি) আবু জাফর জানান, শুক্রবার সকাল থেকে তিস্তার পানি বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ২০ সে: মি: উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। পানি বৃদ্ধি পেয়ে জেলায় প্রায় ১০ হাজার চরবাসী পানি বন্দি হয়ে পড়েছ।

এ বিভাগের আরো সংবাদ

© All rights reserved © Rangpur Sangbad
Design & Develop By RSK HOST