বুধবার, ০৮ জুলাই ২০২০, ১২:৪৫ পূর্বাহ্ন

সুন্দরগঞ্জের শান্তিরাম ইউনিয়ন উন্নয়ন থেকে বঞ্চিত

রংপুর সংবাদ
  • প্রকাশের সময়ঃ বৃহস্পতিবার, ২৫ জুন, ২০২০
  • ৬৮ জন দেখেছেন

রংপুর প্রতিনিধিঃ

*এমপির ডিও লেটা দেয়ার পরও কাজ শুরু হচ্ছে না
*স্বাধীনতার ৪৯ বছরেও অবহেলিত গ্রামবাসী
*শান্তিরাম ইউনিয়নের বেশির ভাগ রাস্তা এখনও কাঁচা।
*দৃশ্যমান উন্নয়ন থেকে বঞ্চিত
*লাগেনি উন্নয়নের ছোয়া
*অবর্ণনীয় দুর্ভোগের শিকার

স্বাধীনতার ৪৯ বছর পেরুলেও উন্নয়নের ছোয়া লাগেনি গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার উত্তর পরান গ্রামে। বেলকা বাজার, শোভাগঞ্জ বাজার, ঝিনিয়া বাজার, জহুরুল হক সর্দারের বাজারের মধ্যবর্তী এলাকা হচ্ছে পরান যার চারদিকের রাস্তা এখনও কাঁচা। গ্রামের রাস্তাটির শুরুর দিকে দহবন্দ ইউনিয়ন, মাঝখানে বেলকা শেষের দিকে শান্তিরাম ইউনিয়ন হওয়াও উন্নয়ন থেকে বরাবরই পিছিয়ে রয়েছে। সুন্দরগঞ্জের ঝিনিয়া ভাজন ব্যাপারীর মসজিদ এবং শোভাগঞ্জ কছর আলী দাখিল মাদ্রাসা থেকে উত্তর পরান যাওয়ার একমাত্র রাস্তাটি কাঁচা। এটি পাকা করার দাবি দীর্ঘ ৪৯ বছরের। একটু বৃষ্টি হলে এ রাস্তায় চলাচলকারী মানুষকে অবর্ণনীয় দুর্ভোগের শিকার হতে হয়।স্থানীয় বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, পনের হাজার মানুষের গ্রামটি সুন্দরগঞ্জ থেকে ৬ কিলোমিটার পূর্ব দক্ষিণে আর শোভাগঞ্জ বিশ্বরোড থেকে দুই কিলোমিটার উত্তরে।এখানকার বেশি ভাগ মানুষই কৃষির উপড় নির্ভরশীল। ঝিনিয়া ভাজন ব্যাপারীর মসজিদ থেকে শুরু হয়ে পরান হাফেজিয়া মাদ্রাসা, পরান চৌরাস্তা মোড় হয়ে পরান কছর আলী মাদ্রাসা পর্যন্ত গেছে রাস্তাটি| রাস্তাটির দৈর্ঘ্য দুই কিলোমিটার।এ গ্রামটিতে একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে।মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ে পড়াশোনার করতে গ্রামের ছেলেমেয়েরা কাঁচা রাস্তা ব্যবহার করে দুই কিলোমিটার দূরে ঝিনিয়া উচ্চ বিদ্যালয়, সাত কিলোমিটার দূরে সুন্দরগঞ্জ আব্দুল মজিদ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়, সুন্দরগঞ্জ ডি ডব্লিউ ডিগ্রি কলেজ এবং শোভাগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়, শোভাগঞ্জ ডিগ্রী কলেজ, বেলকা ডিগ্রী কলেজে পড়তে যায়। এখানকার বেশীর ভাগ মানুষ কৃষির উপর নির্ভরশীল।

গ্রামের বাসিন্দা প্রভাষক আতাউর রহমান জানান, বৃষ্টি হলে কাঁচা রাস্তায় কাদাপানি জমে থাকে তখন রিকশা, অটোরিকশা চলতে পারে না।ছেলে মেয়েদের স্কুল কলেজ যেতে খুব অসুবিধা হয়। বিগত এমপি এবং বর্তমান এমপি সরকার দলীয় হলেও অজানা এক কারনে এখানকার উন্নয়ন হচ্ছে না।যার ফলে অবর্ণনীয় দর্ভোগে পড়তে হচ্ছে।

পরান চৌরাস্তা মোড়ের কাচাঁমালের ব্যবসায়ীরা জানান, সাত কিলোমিটার দূরে সুন্দরগঞ্জ আড়দ থেকে ঝিনিয়া পর্যন্ত রিকশা, অটোরিকশা আসে, ঝিনিয়া ভাজন ব্যাপারীর মসজিদ থেকে মাত্র এক কিলোমিটার রাস্তার জন্য দিগুন ভাড়া গুনতে হয়। অনেক ক্ষেতে দিগুন তিনগুন ভাড়া দিলেও যেতে চায় না।বৃষ্টি হলে অবর্ণনীয় দুর্ভোগ পোহাতে হয়।বেলকা বাজার, শোভাগঞ্জ বাজার, ঝিনিয়া বাজার, জহুরুল হক সর্দারের বাজারের মধ্যবর্তী এলাকা হচ্ছে পরান যার চারদিকের রাস্তা এখনও কাঁচা। তারা বর্তমান এমপি মহোদয়ের কাছে রাস্তাটি পাকা করনের দাবি জানান।

১০ নং শান্তিরাম ইউনিয়নের স্থানীয়বাসীন্দা জাপা সভাপতি প্রভাষক শরীফুল ইসলাম শাহিন বলেন, দীর্ঘ ৪৯ বছরেও এ এলাকার মানুষ উন্নয়ন থেকে বঞ্চিত রয়েছে।বিভিন্ন সময়ে জনপ্রতিনিধিগণ প্রতিশ্রিুতি দিলেও পরে আর তা বাস্তবায়ন করেনি।কিন্তু বর্তমান এমপি একজন কাজ প্রিয় মানুষ বিষয়টি জানার পর রাস্তাটি পাকা করনের প্রতিস্তুতিও দেন তিনি।সে মোতাবেক ১৫ই এপ্রিল ২০১৮ সালে শামীম হায়দার পাটোয়ারী এমপি মহোদয় আইআরআইডিপি-২ প্রকল্পের আওতায় বেলকা মজিদপাড়া-পরান কছর আলী মাদ্রাসা পর্যন্ত ৩.১০০ কিলোমিটার রাস্তা পাকা করনের জন্য ডিও লেটার পাঠান।যার সূত্র নং- ০২০, আইডি নম্বর ১৩২৯১৪০৩২।তিনি জানান এলাকাবাসীর দাবী ছিল ঝিনিয়া ভাজন ব্যাপারীর মসজিদ থেকে শুরু হয়ে পরান হাফেজিয়া মাদ্রাসা, পরান চৌরাস্তা মোড় হয়ে শোভাগঞ্জ কছর আলী মাদ্রাসা পর্যন্ত এবং পরান চৌরাস্তা মোড় থেকে ক্লিনিকের মোড় হয়ে গংশারহাট পর্যন্ত রাস্তা পাকা করনের।কিন্তু রাস্তাটি বেলকা মজিদপাড়া-পরান কছর আলী মাদ্রাসা পর্যন্ত লিষ্টে ওঠে। সে রাস্তাটিও আজ পর্যন্ত পাকা করনের কোন উদ্যোগ নেয়া হয়নি।

ব্যারিষ্টার শামীম হায়দার পাটোয়ারী জানান, প্রধান প্রকৌশলী এলজিডি, আগারগাঁও, ঢাকা বরাবর ডিও লেটার পাঠানো হয়েছে। সারাদেশের এমপিদের বরাদ্ধকৃত রাস্তা জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক) পাশ হয়।বর্তমানে সারাদেশে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক) অনুমোদন বন্ধ থাকায় কাজ শুরু হতে দেড়ি হচ্ছে।একনেকে অনুমোদন চালু হলেই সারাদেশের মতো সুন্দরগঞ্জের রাস্তাগুলোর কাজ শুরু হবে বলে জানান তিনি।

শান্তিরাম ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মোঃ ছামিউল ইসলাম জানান, এমপি মহোদয় ডিও লেটার দিয়েছেন। ইঞ্জিনিয়ার শাখা থেকে মাপ যোগ নেয়া হয়েছে এখনও টেন্ডার হয়নি।তিনি আরো জানান করোনার কারনে সব কাজ বন্ধ থাকায় কাজ শুরু হতে দেড়ি হচ্ছে।৩.১০০ কিলোমিটার রাস্তার কাজ শুরু হলে আশপাশের বাকী রাস্তার কাজ ও হবে।

বেলকা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ ইব্রাহীম খলিলুল্লাহ জানান, প্রধান প্রকৌশলী এলজিডি, আগারগাঁও, ঢাকা বরবার এমপির ডিও লেটার পাঠানো হলেও এখনও সার্ভে করা হয়নি।সার্ভের অর্ডার পাশ হলে সার্ভে রির্পোট আসলেই টেন্ডার হলেই কাজ শুরু হবে।

এ বিভাগের আরো সংবাদ

© All rights reserved © Rangpur Sangbad
Design & Develop By RSK HOST